করোনা শনাক্তে ঢাকাকে ছাড়িয়ে গেল খুলনা বিভাগ

৪১

নিজস্ব প্রতিবেদক

খুলনা বিভাগের ১০ জেলায় করোনাভাইরাসের প্রকোপ বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রথমবারের মতো বিভাগটিতে একদিনে হাজারের বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। এ বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় (শুক্রবার সকাল ৮টা পর্যন্ত) করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন এক হাজার ৩৩ জন। যা খুলনা বিভাগে একদিনে সর্বোচ্চ আক্রান্ত শনাক্তের রেকর্ড। দৈনিক আক্রান্তের হিসেবে শুক্রবার ঢাকাকেও ছাড়িয়ে গেছে খুলনা বিভাগ।

এর আগে খুলনা বিভাগে একদিনে সর্বোচ্চ আক্রান্তের রেকর্ড হয়েছিল ১৬ জুন। সেদিন ৮১৮ জনর দেহে করোনা ধরা পড়ে। শুক্রবার দুপুরে এ তথ্য জানিয়েছেন বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক রাশেদা সুলতানা।
এদিকে সারাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় (শুক্রবার সকাল ৮টা পর্যন্ত) করোনা আক্রান্ত ৫৪ রোগীর মৃত্যু হয়েছে। এ সময়ে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৮৮৩ জন।

স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক বিজ্ঞপ্তির বিভাগীয় শনাক্তের হিসেবে দেখা যায়, এক হাজার ৩৩ শনাক্ত নিয়ে আজ সবার উপরে অবস্থান করছে খুলনা। ৯৪৫ শনাক্ত নিয়ে এরপরেই রয়েছে ঢাকা বিভাগ। এছাড়া ময়মনসিংহে ১২৪, চট্টগ্রামে ৪৫২, রাজশাহী ৮১২, রংপুরে ৩৮১, বরিশালে ৪৮ এবং সিলেটে ৮২ জন আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন।

উল্লেখ্য, খুলনা বিভাগে চুয়াডাঙ্গায় গত বছরের ১৯ মাচ প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। এ পর্যন্ত এ বিভাগের ১০ জেলায় শনাক্ত হয়েছেন ৪৩ হাজার ৬৪৪ জন। মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৭৭৫ জনে। সুস্থ হয়েছেন ৩৩ হাজার ৯৪৪ জন। এ বিভাগের মোট আক্রান্ত থেকে সুস্থ ও মৃতদের বাদ দিলে বর্তমানে সক্রিয় করোনা রোগী রয়েছেন ৮ হাজার ৯২৫ জন।

বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদফতরের জেলাভিত্তিক গত ২৪ ঘণ্টায় (শুক্রবার সকাল ৮টা পর্যন্ত) করোনা সংক্রান্ত তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, খুলনায় আক্রান্ত ২২৬, মোট ১২ হাজার ৪৪৯, মৃত্যু ২০৩ এবং সুস্থ হয়েছেন ৯ হাজার ৮৯৪ জন। বাগেরহাটে নতুন শনাক্ত ৮৯, মোট ২ হাজার ৪৭৯, মৃত্যু ৬৩ এবং সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৬৬৬ জন। সাতক্ষীরায় শনাক্ত ৮৫, মোট ২ হাজার ৭৯৬ জন, মৃত্যু ৫৬ এবং সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৮৭২ জন। যশোরে শনাক্ত ২৯১, মোট ৯ হাজার ২৪৪, মৃত্যু ১০১ এবং সুস্থ হয়েছেন ৬ হাজার ৭৪১ জন। নড়াইলে শনাক্ত ৪৬, মোট ২ হাজার ২১০, মৃত্যু ৩০ এবং সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৮৪৭ জন। মাগুরায় ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত ১০, মোট ১ হাজার ৩৭৫, মৃত্যু ২৪ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ২২০ জন। ঝিনাইদহে শনাক্ত ৫৪, মোট ৩ হাজার ৩৮২, মৃত্যু ৬১ এবং সুস্থ হয়েছেন ২ হাজার ৮৫৮ জন। কুষ্টিয়ায় শনাক্ত ১৫৬, মোট ৬ হাজার ৬২, মৃত্যু ১৪০ এবং সুস্থ হয়েছেন ৪ হাজার ৯৫৭ জন। চুয়াডাঙ্গায় শনাক্ত ৫৯, মোট শনাক্ত ২ হাজার ৪৪৭, মৃত্যু ৬৬ এবং সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৯৩১ জন। মেহেরপুরে শনাক্ত ৩৩, মোট ১ হাজার ৩০০, মৃত্যু ৩১ এবং সুস্থ হয়েছেন ৯৪৮ জন।

মন্তব্য
Loading...