গোপিকান্তপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় সভাপতিসহ ১১ জনকে আসামি করে মামলা

0 ২৯

নিজস্ব প্রতিবেদক

যশোর মণিরামপুরে অনিয়ম-দুর্নীতি ও গুরুত্বপূর্ণ রেজিস্ট্রার নিয়ে যাওয়ার অভিযোগে গোপীকান্তপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতিসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষক জালাল উদ্দিন এ মামলা করেছেন। জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মামুনুর রহমান অভিযোগের তদন্ত করে সিআইডিকে প্রতিবেদন জমা দেয়ার আদেশ দিয়েছেন।
মামলার আসামিরা হলো বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি নিতাই চন্দ্র পাল ওরফে নিতাই মহুরী, লক্ষনপুরের মুছাব্দী গোলদারের ছেলে মতিয়ার রহমান, কার্ত্তিক দাসের ছেলে দীপক দাস, সুবোধ পালের ছেলে গৌরচন্দ্র পাল, অজয়পাল, চিত্তরঞ্জন পালের ছেলে কাজল কুমার পাল, পানিছত্র গ্রামের জালাল খাঁর ছেলে মশিয়ার রহমান, খড়িঞ্চি গ্রামের মোকছেদ আলীর ছেলে আব্দুল মতিন, গোপীকান্তপুর গ্রামের মালেক ফকিরের ছেলে আব্দুল জলিল, মৃত শামসের গাজীর ছেলে ইমরান আলী ও নেবুগাতি গ্রামের বিনয় রায়ের ছেলে অসীম রায়।

মামলায় মামলার অভিযোগে জানা গেছে, ২০১৯ সালের পহেলা আগস্ট সভাপতি পদে যোগদান করেই নিতাই মহুরী সহকারী শিক্ষক হিসেবে অসীম রায়কে নিয়োগ দেন। স্কুলের উন্নয়নের কথা বলে তিনি তার কাছ থেকে ৫ লাখ টাকা করে ছিলেন। এছাড়া আয়া পদে নিয়োগ দেওয়ার কথা বলে রেশমা খাতুন ও হাজিরা খাতুনের কাছ থেকে তিন লাখ টাকা, রবিউল ইসলামকে অংকের শিক্ষক হিসেবে চাকরি দেয়ার কথা বলে ৩ লাখ টাকা নিয়ে আত্মসাৎ করেন। এসব বিষয়ে প্রতিবাদ করায় সকল আসামিসহ অপরিচিত ১০ জনকে সাথে নিয়ে সভাপতি নিতাই বিদ্যালয়ে প্রবেশ করে রেজুলেশন বই, প্রতিষ্ঠানের আয় ব্যয় হিসাবের খাতা, হাজিরা খাতা সহ ১০টি রেজিস্টার ও স্কুলের গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্ট নিয়ে চলে যান। এসয় ভুল বুঝিয়ে প্রতিষ্ঠানের কয়েকজনের কাছ থেকে বিভিন্ন খাতায় স্বাক্ষর করিয়ে নেন তিনি। প্রয়োজনীয় ওইসব রেজিস্ট্রার ফিরিয়ে দিতে প্রধান শিক্ষক সভাপতিকে তাগাদা দেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে গত ২২ মার্চ সভাপতিসহ অন্যরা দলবদ্ধ হয়ে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে বিদ্যালয়ে এসে প্রধান শিক্ষকসহ অন্যদের ভয়ভীতি দেখিয়ে চলে যায়। আসামিরা গুরুত্বপূর্ণ রেজিস্ট্রার নিয়ে নিজেদের ইচ্ছামত ডকুমেন্ট তৈরি করতে পারে। যাতে বিদ্যালয়ে কর্মরত সকলের বড় ধরণের ক্ষতি হতে পারে। তিনি গুরুত্বপূর্ণ রেজিস্ট্রার উদ্ধারে ব্যর্থ হয়ে আদালতে এ মামলা করেছেন।

মন্তব্য
Loading...