সাতক্ষীরায় কড়াকড়ি লকডাউন

0 ২৪

সাতক্ষীরা অফিস

করোনার ঊর্ধ্বগতি ঠেকাতে সাতক্ষীরায় জেলা প্রশাসন ঘোষিত সাতদিনের লকডাউনের তৃতীয় দিনে প্রশাসনের তৎপরতা বৃদ্ধি পেয়েছে। মোড়ে মোড়ে চলছে তল্লাশি। শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশ চেকপোস্ট বসিয়ে চলাচল নিয়ন্ত্রণ করছে। বন্ধ রয়েছে দূরপাল্লার বাসসহ সকল ধরণের গণপরিবহন। তবে কিছু কিছু এলাকায় ব্যটারিচালিত ভ্যান, ইজিবাইক ও মোটরসাইকেল চলাচল করেতে দেখা গেছে। লকডাউনের মধ্যে ওষুধ ফার্মেসি, অ্যাম্বুলেন্স, হাসপাতাল, ক্লিনিক, বিদ্যুৎ জ¦ালানি সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান খোলা রয়েছে। ভোমরা স্থলবন্দরেও সীমিত পরিসরে চলছে আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম। তবে ভারতীয় চালক ও হেলপাররা যাতে খোলামেলা ঘুরে বেড়াতে না পারেন সে জন্য পুলিশ ও বিজিবির নজরদারি বৃদ্ধি করা হয়েছে। এছাড়া লকডাউনের মধ্যে দোকানপাট খোলা রাখা, স্বাস্থ্যবিধি না মানাসহ বিভিন্ন অপরাধে জেলার বিভিন্ন স্থানে ভ্রাম্যমাণ আদালতের আরো ১২টি অভিযানে ৪৯টি মামলায় ৫৪ হাজার ১০০ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক এসএম মোস্থফা কামাল।

এদিকে, রোববার রাতে করোনার উপসর্গ নিয়ে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক নারীসহ দুই জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃত ব্যক্তিরা হলেন, কালিগঞ্জ উপজেলার ফতেপুর গ্রামের মহাররাম গাজী (৬৫) ও দেবহাটা উপজেলার শাখরাকোমরপুর গ্রামের তামান্না খাতুন (২৩)। এনিয়ে ভাইরাসটির উপসর্গ নিয়ে জেলায় মারা গেছেন আরো অন্ততঃ ২২৭ জন।

সাতক্ষীরা সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার জয়ন্ত সরকার জানান, জেলায় ৯৪ জনের করোনা পরীক্ষা শেষে ৫০ জনের শরীরে পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। এছাড়া আজ পর্যন্ত জেলায় ১ হাজার ৮৮৬ জনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৪৮ জন। এছাড়া সাতক্ষীরায় বিভিন্ন হাসপাতালে মোট ৩৩৯ জন করোনা রোগী চিকিৎসা নিচ্ছেন। এর মধ্যে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ২৬ জন ও সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ২৬ জন করোনা পজিটিভ রোগী ভর্তি আছেন। বাকিরা বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। এছাড়া করোনা উপসর্গ নিয়ে জেলার বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে প্রায় ৪০০ রোগী ভর্তি রয়েছেন।

অপরদিকে, বিজিবির সাতক্ষীরাস্থ ৩৩ ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক লে.কর্নেল আল মাহমুদ জানান, অবৈধ যাতায়াত রোধে সীমান্তে টহল জোরদার করা হয়েছে। রোববার রাতে বিনা পাসপোর্টে অবৈধপথে বাংলাদেশে ফিরে আসার সময় সদর উপজেলার পদ্মশাখরা সীমান্ত থেকে তিনজনকে আটক করা হয়েছে। এছাড়া গত ২৮ এপ্রিল থেকে ৬ জুন পর্যন্ত সীমান্তে অভিযান চালিয়ে এক নারী পাচারকারীসহ ৩৯ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

মন্তব্য
Loading...