করোনার দ্বিতীয় ঢেউ : যশোরের ক্রীড়াঙ্গনে স্থবিরতা, সংকটে অসচ্ছল খেলোয়াড়রা

0 ৭৪

ক্রীড়া প্রতিবেদক

করোনাভাইরাসের কারণে গোটা বিশ্ব থমকে গিয়েছিল। সবকিছুতেই স্থবিরতা। এর প্রভাবে নির্মল বিনোদনের মাধ্যম ক্রীড়াঙ্গনও মুখ থুবড়ে পড়ে। ২০২০ সালের মার্চে স্থগিত হয়ে গিয়েছিল সবধরনের খেলাধুলা। ওই সময় যশোরেও সবধরনের খেলা অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত ছিল। গত নভেম্বর থেকে ধীরে ধীরে আবারও মাঠে ফিরেছিল প্রায় সবধরনের খেলাধুলা। কিন্তু আশঙ্কাজনকভাবে ক্রীড়াঙ্গনে ফের আঘাত হেনেছে ঘাতক করোনাভাইরাস। আপাতত স্থগিত করা হয়েছে যশোর জেলা ক্রীড়া সংস্থার ক্রিকেট ডেভেলপমেন্ট কমিটি আয়োজিত স্বাধীনতাকাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্ট। এছাড়া বয়সভিত্তিক ক্রিকেট প্রতিযোগিতার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিল খেলোয়াড়রা। ১২ এপ্রিল থেকে শুরু হওয়ার কথা থাকলেও স্থগিত করা হয়েছে অ্যাথলেটিক্স প্রতিযোগিতা। এছাড়া আলোচনায় থাকা হকি, হ্যান্ডবল, বাস্কেটবল লিগ ও ব্যাডমিন্ট টুর্নামেন্ট কার্যক্রমও স্থগিত করা হয়েছে।
অপরদিকে, প্রায় দেড়বছর আগে প্রথম বিভাগ ফুটবল লিগের এন্ট্রি সম্পন্ন করলে করোনার কারণে তা শুরু করতে পারেনি জেলা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন।

যশোর শামস্-উল-হুদা ফুটবল অ্যাকাডেমির কার্যক্রমও বন্ধ রয়েছে করোনার কারণে। অ্যাকাডেমির কোচ কাজী মারুফ বলেন, যশোর শামস্-উল-হুদা ফুটবল অ্যাকাডেমি একটি ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। দেশের সকল প্রতিষ্ঠান খুললে অ্যাকাডেমির কার্যক্রম পূর্ণাঙ্গভাবে চালু হবে। তবে খেলোয়াড় ফিটনেস ধরে রাখার আমার অনলাইনে বিভিন্ন নির্দেশনা দিচ্ছি।

যশোর জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ইয়াকুব কবির বলেন, বাংলাদেশ গেমস্ শেষ হওয়ার পর হ্যান্ডবল, বাস্কেটবল, কাবাডি লিগ ও ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্ট করা বিষয়ে আলোচনা হয়েছিল। ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্টের জন্য স্পন্সরদের সাথে কথা হয়েছিল। কিন্তু করোনার কারণে আলোচনা থেমে আছে।

তিনি আরও বলেন, গতবছর করোনার সময় জেলা ক্রীড়া সংস্থা জেলার ১০০ অসচ্ছল খেলোয়াড়দের খাদ্য দিয়ে সহযোগিতা করেছিল। এবারও অসচ্ছল খেলোয়াড়দের সাহায্যের বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছি। জেলা প্রশাসক সম্মতি পেলে এবারও তাদের খেলোয়াড়দের সহযোগিতা করা হবে।

মাঠের লড়াই বন্ধ থাকায় খেলোয়াড় ও কর্মকর্তাদের কপালে পড়েছে দুশ্চিন্তার ভাঁজ। অনেকে জানিয়েছেন এতে করে তারা নিদারুণ আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হবেন। খেলা না হলে তাদের সংসার চালানোই মুশকিল হয়ে যাবে। কারণ খেলার বিনিময়ে পাওয়া অর্থ দিয়েই তারা সংসার পরিচালনা করেন।

মন্তব্য
Loading...