বছরের কমিটি দিয়ে ১৬ বছর পার কেশবপুর পৌর ছাত্রলীগের

১১৪

উৎপল দে, কেশবপুর

যশোরের কেশবপুর পৌর ছাত্রলীগের ১ বছরের কমিটি চলছে ১৬ বছর। এতে করে নতুন নেতৃত্ব যেমন তৈরি হচ্ছে না, তেমন সাংগঠনিক কাঠামোও দুর্বল হয়ে পড়েছে। এ নিয়ে নেকতাকর্মীদের মাঝে আছে হতাশা ও ক্ষোভ। এই কমিটিতে রয়েছেন বিবাহিত, অছাত্র, চাকরিজীবী ও ব্যবসায়ী।

দলীয় সূত্র জানায়, সর্বশেষ ২০০৩ সালের কেশবপুর পৌর ছাত্রলীগের কমিটি গঠন করা হয়। শুভ্রদেব হালদার বাপীকে সভাপতি, শাহীনুর রহমানকে সাধারণ সম্পাদক ও সুমন সাহা রবীনকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে ৩১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়।

পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি শুভ্রদেব হালদার বাপী ২০০৭ সাল থেকে ঢাকায় অবস্থান করছেন পড়াশুনার কারণে।
তিনি ঢাকা কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্মআহ্বায়ক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন। বর্তমানে তিনি কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহসভাপতি মনোনীত হয়েছেন। সাধারণ সম্পাদক শাহীনুর রহমান চাকরিজীবী ও এক সন্তানের জনক।
সাংগঠনিক সম্পাদক সুমন সাহা রবীন আইটি ব্যবসায়ী ও এক সন্তানের জনক। ২০০৩ সালের কেশবপুর পৌর ছাত্রলীগের কমিটি গঠন করা হলেও ১৬ বছরেও ১টিও ওয়ার্ড কমিটি গঠিত হয়নি। পৌর ছাত্রলীগ কর্মী রায়হান কবীর, মোহাম্মদ নাসিম, খন্দকার জসিম ও রাসেল মোড়ল বলেন, নতুন কমিটি হলে দল শক্তিশালী হবে। তারা নতুন কমিটির দাবি করেন।

তাজিম হাসান খান বলেন, পৌর ছাত্রলীগের নতুন কমিটির মাধ্যমে ছাত্রলীগকে সুসংগঠিত করা সম্ভব। প্রতিটা ওয়ার্ড পর্যায়ে ছাত্রলীগকে শক্তিশালী করতে প্রয়োজন নতুন নেতৃত্ব।

পৌর ছাত্রলীগের অভিরুপ চক্রবর্তী অটল বলেন, ছাত্রলীগের কেশবপুর পৌর শাখার বছরের পর বছর নেতৃত্ব না থাকায় কর্মীদের মাঝে হতাশা বিরাজ করছে। দ্রুত নতুন কমিটি হলে ছাত্রলীগ পৌর এলাকায় আরো সুসংগঠিত হবে।

পৌর কমিটিতে পদ পেতে কাজ করে যাচ্ছেন তরুণ ছাত্রনেতারা। তাদের দাবি, দ্রুত নতুন কমিটি করা হোক। কেশবপুর পৌর ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সুমন সাহা রবীন বলেন, পৌর ছাত্রলীগের নতুন করে কমিটি না থাকায় নতুন নেতৃত্ব তৈরি হচ্ছে না। দ্রুত কমিটি গঠন প্রয়োজন।

কেশবপুর পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীনুর রহমান বলেন, ২০০৩ সালে কেশবপুর পৌর ছাত্রলীগের ১ বছরের জন্য কমিটি গঠন করা হয়। আমি চাই দ্রুত পৌর ছাত্রলীগের কমিটি গঠন করা হোক। নতুন কমিটি এলে পৌর ছাত্রলীগ গতিশীল হবে।

মন্তব্য
Loading...