বেনাপোলে ফের অস্ত্রের মহড়া!

0 ১৯

নুরুল কবির

দেশের প্রধান স্থলবন্দর বেনাপোলে আবারো অস্ত্রের মহড়া হয়েছে। রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় এ মহড়া চলে বলে স্থানীয় সূত্রগুলো জানিয়েছে। ভারত সীমান্ত গলে সহজে অস্ত্র আসায় সন্ত্রাসীরা দিন দিন বেপরোয়া হয়ে উঠছে। বেনাপোল পোর্ট থানার বৃত্তি আঁচড়া গ্রামের রায়হান বাহিনী প্রধান প্রকাশ্যে অস্ত্র নিয়ে মহড়া দিচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। মাদক চোরাচালানসহ একাধিক মামলার আসামি রায়হান পিস্তল উঁচিয়ে ওই গ্রামের আলী হোসেন ও পুটখালী ইউপি সদস্য মোক্তারকে জীবননাশের হুমকি দিয়েছেন।
পুটখালী ইউনিয়ন পরিষদের জনপ্রিয় মেম্বার মোক্তার ও তার অনুসারীদের এভাবে প্রকাশ্যে অস্ত্র নিয়ে হুমকি দেয়ায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন এলাকাবাসী। রব্বুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি অভিযোগ করেন, পুটখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাদিউজ্জামানের মদদে তার লোকজন সন্ত্রাসী কর্মকা-ে লিপ্ত।
বৃত্তি আঁচড়া গ্রামের আলী হোসেন বলেন, একজন সংসদ সদস্যের অনুসারী কতিপয় ব্যক্তি দীর্ঘদিন ধরে শার্শা এলাকার নিরীহ মানুষকে মারধর, হত্যার হুমকিসহ নানাবিধ অপরাধমূলক কাজ করে যাচ্ছে। এই কারণে আমরা মোক্তার মেম্বারের নেতৃত্বে বেনাপোলের পৌরমেয়র আশরাফুল আলম লিটনের অনুসারী। আমরা শান্তিপূর্ণ রাজনীতি করি। এতে বেঁকে বসেন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও তার অনুসারীরা। তারা শার্শার এক শীর্ষ রাজনৈতিক নেতারও অনুসারী। দীর্ঘদিন ধরে শার্শায় হত্যা, গুম ও নির্যাতন-নিপীড়ন চালান ওই নেতার অঙ্গুলি হেলনে। আর এই নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন ত্যাগী আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা। তাই আমরা সুস্থ ধারার রাজনীতি করতে বেনাপোলের পৌরমেয়র আশরাফুল আলম লিটনকে সমর্থন করি।
আলী হোসেন বলেন, সোমবার প্রকাশ্য দিবালোকে আমার পটলক্ষেতে চেয়ারম্যান হাদিউজ্জামানের বাহিনীর সদস্য বৃত্তি আঁচড়া গ্রামের রায়হান, মোমিন হোসেন, হাবিল হোসেন, আব্দুল্লাহ প্রমুখ আমাকে পিস্তল, বোমা ও দা নিয়ে জীবননাশের হুমকি দেন। তারা বলেন, যদি তুমি মেয়র লিটনের কোনো মিটিং-মিছিলে যাও তবে তোমাকে হত্যা করা হবে। আর দলিল উদ্দিনের সাথেও কোনো যোগাযোগ রাখবে না।
ইউপি সদস্য মোক্তার হোসেন বলেন, হাদিউজ্জামান তার সন্ত্রাসী বাহিনী ও নিজের ভাইকে আমার বাড়ি পাঠিয়ে হুমকি দেন এই বলে যে, আমি যেন মেয়র লিটনের কোনো মিটিং-মিছিলে অংশগ্রহণ না করি।
এ ব্যাপারে বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি মামুন খান বলেন, যদি কেউ কোথাও সন্ত্রাসী কর্মকা- করে তবে তার খবর পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। বৃত্তি আঁচড়া গ্রামে পুলিশ সার্বক্ষণিক টহলে আছে। আমি নিজেও ওই এলাকা পরিদর্শন করেছি।

মন্তব্য
Loading...