মণিহার পর্দায় পড়লো রঙিন আলো, দুই শোতে ৯৫ দর্শক

২২৪

এম এ রাজা

প্রায় সাত মাস পর শুক্রবার সিনেমা হলের পর্দায় রঙিন আলো জ্বলে উঠেছে। দীর্ঘদিন বন্ধের পর সিনেমা হল চালু হলেও আশানুরূপ দর্শক দেখা যায়নি। এক হাজার ৪০০ দর্শক ধারণক্ষমতার যশোরের মণিহার সিনেমা হলে সকাল ও দুপুরের দুই ‘শো’তে মাত্র ৯৫ জন দর্শক সিনেমা উপভোগ করেছেন।
এত কম দর্শকেও হতাশ নন বলে জানিয়েছেন মণিহার সিনেমা হলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জিয়াউল ইসলাম মিঠু। বিগ বাজেটের সিনেমা আসলে আবারও দর্শক হলমুখি হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।
অর্ধেক আসন খালি রাখার শর্তে ১৬ অক্টোবর থেকে হলগুলোতে সিনেমা প্রদর্শনীর অনুমতি দেয় তথ্য মন্ত্রণালয়। তবে যশোরের মণিহার ছাড়া আর কোনো হল চালু হয়নি বলে জানা গেছে।
শার্শার বাগআঁচড়ার ময়ূরী সিনেমা হলে মালিক আশরাফুল ইসলাম বাবু বলেন, হল চালু করার খবর খুব বেশিদিন আগে জানতে পারিনি। তাই প্রস্তুতি নিতে পারিনি। তবে আগামী সপ্তাহে হলটি চালু করবো।
শাকিব খান ও নুসরাত অভিনীত শাহেনশাহ সিনেমা দিয়ে চালু হয়েছে যশোরের ঐতিহ্যবাহী মণিহার সিনেমা হল। বন্ধ হওয়ার আগেও এই সিনেমাটি চলেছে মণিহার প্রেক্ষাগৃহে।
সিনেমা দেখতে আসা অনেকেই বলছেন, তারা সাত মাস পর সিনেমা হলে এসে খুশি। কারণ গত সাত মাসের লকডাউনের কারণে এক ধরনের একঘেয়েমি তৈরি হয়েছে। সেটি এখন দ্রুত কাটানো সম্ভব হবে।
সিনেমা দেখতে আসা মাসুদ পারভেজ বলেন, আমি খুবই উচ্ছ্বসিত। অনেক দিন পর সিনেমা হলে আসলাম। আমি আমার বন্ধুদের নিয়ে আবার সিনেমা দেখব। ভাবতেই ভালো লাগছে।
দীর্ঘদিন পর সিনেমা হল চালু হওয়াতে খুশি যশোর মণিহার সিনেমা হলের কর্মচারী প্রদীপ দাস। তিনি বলেন, সাতমাস বেকার ছিলাম। এই হলের কর্মচারী সবাই বেকার ছিল। তবে হলের মালিক এই সময় চলার মতো অর্থ দিয়েছেন। অবশেষে হল খুলেছে। কাজ করতে পারবো। তাই আমরা সবাই আনন্দিত।
মণিহার সিনেমা হলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জিয়াউল ইসলাম মিঠু বলেন, প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যবিধি মেনেই আমরা হল খুলেছি। চেয়ারগুলো স্যানিজাইজ করছি, দর্শকদের মাস্ক নিশ্চিত করছি। দর্শকদের অনেকেই জানে না হল খুলেছে। তাই দর্শকও একটু কম। তবে যে দর্শক এসেছে সেটাও আশা করিনি। ভেবেছিলাম প্রথম দিনে দর্শকই আসবে না। মর্নিং শো’তে ৫০ ও দুপুরের শো’তে ৪৫ জন দর্শক সিনেমা উপভোগ করেছেন। ধীরে ধীরে দর্শক বাড়বে বলে আমরা আশাবাদী। আগের দামেই সিনেমা উপভোগ করা যাবে।
এছাড়া হল খুললেও মুক্তি দিতে অনীহা প্রকাশ করেছেন দেশের বড় বাজেটের সিনেমার অনেক প্রযোজক। তাই নিম্নমানের ছবি ‘সাহসী হিরো আলম’ দিয়েই সাতমাস পর সিনেমা হল চালু হয়েছে। মুকুল নেত্রবাদী পরিচালিত ছবিটিতে নায়ক হিরো আলম নিজেই। প্রযোজকও তিনি। ছবিটি মুক্তি পেয়েছে দেশের ৩৯টি হলে।

মন্তব্য
Loading...