আর কত প্রাণ ঝরলে পরিবহন শ্রমিকরা নিয়ন্ত্রণে আসবে

৪৯

মাগুরা ও গোপালগঞ্জ প্রায় পাশাপাশি দুটি জেলা। এই দুই জেলায় ১৮ সেপ্টেম্বর সড়ক দুর্ঘটনায় ৭ জন মারা গেছেন। মাগুরায় দুটি বাস ও একটি মাইক্রোর সংঘর্ষে ৪ জন নিহত হয়েছেন এবং ৩০ জন আহত হয়েছেন। সদর উপজেলার মঘির ঢালে এই দুর্ঘটনাটি ঘটে। আর গোপালগঞ্জে একটি মোটরসাইকেলের ৩ যাত্রী মারা যান বাসের ধাক্কায়। বাসটি তাদের প্রাণ হরণ করে মোটরসাইকেলটি ঠেলে ২ কিলোমিটার দূরে গিয়ে একটি গাছের সাথে ধাক্কা খায়। এতে ওই বাসটিতে আগুন ধরে যায়। দুটি দুর্ঘটনার বিষয় পর্যালোচনা দেখা যায় দেখা যায় চালকরা কত বেপরোয়া। ৩টি যানের সংঘর্ষ হলো একই জায়গায়। আর একটি বাস মোটরসাইকেল যাত্রীদের প্রাণ হরণ করে তাদের মোটরসাইকেলটি দুই কিলোমিটার ঠেলে নিয়ে গেল। তার পর একটি গাছে ধাক্কা খেয়ে আগুন ধরে গেল, কিন্তু টের পেল না ওই বাসের বেপরোয়া চালক। আমরা এক একটি দুর্ঘটনার কথা শুনি আর সেই সাথে শুনি বেপরোয়া পরিবহন শ্রমিকদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের গাল ভরা বুলি। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয় না। যারা মানুষের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে তারা বুঝেই ফেলেছে, যে ভয়ই তাদের দেখানো হোক না কেন আসলে তাদের কিছু হবে না। হচ্ছেও না।

স্বজন হারানোর বেদনা কতটুকু তা যারা এ ব্যথায় ব্যথিত তারা ছাড়া আর কেউ অনুভব করতে পারবে না। সবার বাড়িতে আছেন মা-বাবা, সন্তান-সন্তুতি, স্ত্রী, আত্মীয়-স্বজন। সবাই আজ পাগলপ্রায়।
যদি স্থানীয় জনতা উত্তেজনাবশত ঘাতক বাসটি ভাঙচুর করে বসতো তাহলে পরিবহন শ্রমিকরা রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করতো। ভাঙচুরের অপরাধে পুলিশ মামলা করতো এলাকার সাধারণ নিরীহ মানুষের নামে। মানুষ খুন করেও পরিবহন শ্রমিকরা শেষমেষ পার পেয়ে যেত এবং প্রতিটি ক্ষেত্রে হচ্ছেও তাই। তারা জোর গলায় বলবে সড়ক দুর্ঘটনার জন্য একা শ্রমিকরা দায়ী নয়। এ জন্য পথচারীরাও দায়ী। এ ক্ষেত্রে আমরা বলতে চাই- পরিবহন শ্রমিকদের কথা ঠিক হলে সারা বিশ্বের অন্যান্য দেশেও বাংলাদেশের মতো সড়ক দুর্ঘটনা হতো। কিন্তু সেটা কি হয়? ওই সব দেশের শ্রমিকদের দায়বদ্ধতা ও জবাবদিহিতা আছে। আমাদের দেশে এ সব কিছুই নেই। এ কারণে ফ্রিস্টাইলে ঘটে চলেছে সব কিছু। এক একটি দুর্ঘটনা ঘটে আর সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয় অপরাধী শ্রমিকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। কিন্তু সে ব্যবস্থা আর জনসাধারণ চোখে দেখে না। আমরা জানিনে আর কত প্রাণ এভাবে গেলে পরিবহন শ্রমিকরা নিয়ন্ত্রণে আসবে। বন্ধ হবে তাদের বেপরোয়া ভাব।

মন্তব্য
Loading...