যশোরে এখন চিকিৎসাধীন ৩৪৫ জন করোনা রোগী

0 ৬৯

রাজু আহমেদ

যশোর জেলায় গর্ভবতী নারী, চিকিৎসক, ব্যবসায়ী, গৃহিণী, শিশু ও ছাত্রসহ আরো ৮ জন কোভিড-১৯ ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। তবে এদিন কেউ সুস্থ হয়নি। যবিপ্রবি জিনোম সেন্টার ল্যাবে ১৯ জনের নমুনা পরীক্ষা করে রোববার এ ফলাফল ঘোষণা করা হয়। এ নিয়ে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৫১৬ জনে দাঁড়িয়েছে। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৬২ জন। আর এই জেলায় করোনা শনাক্ত হওয়া ৯ জন রোগীর মৃত্যু হয়েছে। বর্তমানে জেলায় মোট ৩৪৫ জন করোনা রোগী রয়েছেন। তাদের মধ্যে হাসপাতালের আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৩৫ জন। বাকি ৩১০ জন বাড়িতে চিকিৎসাধীন আছেন।
যবিপ্রবি ল্যাবের পরীক্ষায় শনাক্ত নতুন করোনা রোগীর ৮ জনের মধ্যে ৩ জন সদর উপজেলার বাসিন্দা ও ৫ জন চৌগাছা উপজেলার বাসিন্দা। শনাক্ত করোনা আক্রান্তদের মধ্যে সদর উপজেলার একই পরিবারের একজন গর্ভবতী নারীসহ দুজন ও একজন গৃহিণী এবং চৌগাছা উপজেলায় তিন বছরের এক শিশু, একজন গৃহিণী, একজন ছাত্র, একজন ব্যবসায়ী ও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক চিকিৎসক করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।
যশোর জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের মেডিকেল অফিসার রেহেনেওয়াজ বলেন, যশোর জেলায় মোট ৫১৬ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। শনাক্ত ৫১৬ জনের মধ্যে যশোর সদর উপজেলায় ১৫৬ জন, ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ৩৩ জন, চৌগাছায় ৩০ জন, কেশবপুরে ৩৫ জন, মণিরামপুরে ১৮ জন, শার্শায় ৪৭ জন, ঝিকরগাছায় ২৬ জন, অভয়নগর উপজেলায় ১৫৭ জন এবং বাঘারপাড়া উপজেলার ১৪ জন বাসিন্দা।

তিনি জানান, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ৫১৬ জনের মধ্যে ১৬২ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন। তাদের মধ্যে সদর উপজেলার ২২ জন, চৌগাছার ১৬ জন, শার্শার ১৬ জন, অভয়নগরের ৩৩ জন, বাঘারপাড়ার ৩ জন, যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল থেকে ৩৩ জন এবং কেশবপুর, ঝিকরগাছা ও মণিরামপুর উপজেলার ১৩ জন করে বাসিন্দা সুস্থ হয়েছেন। বর্তমানে জেলায় মোট ৩৫৪ জন করোনা রোগী রয়েছেন। তাদের মধ্যে হাসপাতালের আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৩৫ জন। করোনা আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে ২৫ জন টিবি হাসপাতালে, ৩ জন বাঘারপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং ৭ জনকে অভয়নগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। বাকি ৩১০ জন বাড়িতে চিকিৎসাধীন আছেন।
জেলায় গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরো ৯ জনকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। সেখান থেকে ৮ জন ছাড়পত্র পেয়েছেন। একই সময়ে নতুন করে ৬৯ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। আর ২৫ জনকে মুক্ত করে দেয়া হয়েছে। এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন যশোরের সিভিল সার্জন শেখ আবু শাহীন।

মন্তব্য
Loading...