সাতক্ষীরার কালিগঞ্জে গম জব্দ : চারজন আটক

0 ৬১

সাতক্ষীরা অফিস

সাতক্ষীরায় ডিবি পুলিশের অভিযানে কাজের বিনিময়ে খাদ্য কর্মসূচি (কাবিখা) প্রকল্পের কাজ না করে পাচারের সময় ৪০ মেট্রিক টন (৬৫৫ বস্তা) সরকারি গম জব্দ করা হয়েছে। শহরের বাঁকাল চেকপোস্ট ও পাটকেলঘাটার একটি গোডাউনে বৃহস্পতিবার রাত থেকে অভিযান চালিয়ে শুক্রবার বিকেল পর্যন্ত এ গম জব্দ করা হয়। জব্দ গমের দাম ১২ লাখ ১৮ হাজার টাকা।
সাতক্ষীরা সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মীর্জা সালাউদ্দীন জানান, কালিগঞ্জ উপজেলার সাতটি ইউনিয়নের বিভিন্ন ওয়ার্ডে রাস্তার কাজ না করেই বরাদ্দকৃত গম পাচারের উদ্দেশ্যে কালিগঞ্জ খাদ্যগুদাম থেকে সাতক্ষীরা অভিমুখে আসছে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তার নেতৃত্বে জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের ওসি মহিদুল ইসলামসহ ফোর্স নিয়ে বাঁকাল এলাকা থেকে এক ট্রাক এবং পাটকেলঘাটার একটি গোডাউন থেকে আরও এক ট্রাকসহ মোট দুই ট্রাক গম জব্দ করেন। এ গম কেনেন পাটকেলঘাটার মুকুন্দ ফ্লাওয়ার এন্ড ডাল মিলের মালিক গোবিন্দ সাধু। এদিকে সরকারি গম পাচারের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ কালিগঞ্জের তারালি ইউনিয়নের আট নম্বর ওয়ার্ড মেম্বার শহিদুল ইসলাম, আব্দুল খালেক ঘোরামি, লিয়াকত আলী ও আব্দুল গনিকে আটক করেছে। এছাড়া আরো দুজন পালিয়ে গেছেন বলে তিনি জানান।
এ ঘটনায় দুদকের খুলনা সমন্বিত কার্যালয়ের ইন্সপেক্টর নীল কমল পাল ও বিজন কুমার সাতক্ষীরা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।
এদিকে নলতা গ্রামের বাসিন্দা ও স্থানীয় যুবলীগ কর্মী সাইফুল ইসলাম টুটুল জানান, কালিগঞ্জে কাবিখার একটি প্রকল্পে রাস্তার কাজের জন্যে ৮০ মে.টন গম বরাদ্দ দেয়া হয় নলতার আব্দুল খালেক ঘোরামির একক নামে। তিনি কোনো কাজ না করেই বসন্তপুর সরকারি গোডাউন থেকে গম তুলে তা আত্মসাৎ করেছেন। পুলিশ যে গম জব্দ করেছে এটা সেই গম বলে তিনি দাবি করেন। তিনি আরো জানান, আব্দুল খালেক ঘোরামি কিছুদিন আগেও এলাকার বিভিন্ন বাড়ির ঘরের চাল তৈরির কাজ করতেন। তার অর্থনৈতিক অবস্থা খুবই খারাপ ছিল। স্থানীয় রাজনৈতিক নেতাদের ব্যবহার করে তিনি এখন আঙুল ফুলে কলাগাছ বনে গেছেন।

মন্তব্য
Loading...