সরকারি সার্জিক্যালসামগ্রি বিক্রিকালে আটক ১

৯৭

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি
সরকারি সার্জিক্যালসামগ্রি কালোবাজারে বিক্রির সময় সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের এক পরিচ্ছন্নকর্মীকে আটক করে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছেন স্থানীয় জনতা। বৃহষ্পতিবার সন্ধ্যায় সদর হাসপাতালের সামনে এ ঘটনাটি ঘটে। আটককৃতের নাম বিশ্বনাথ দাস (৩১)। সে শহরের রসুলপুরের রণজিৎ দাসের ছেলে।
খুলনা রোড় মোড়ের আজমল হোসেন, কামরুল ইসলামসহ স্থানীয়রা জানান, সদর হাসপাতালের অস্থায়ী পরিচ্ছন্নকর্মী বিশ্বনাথ একটি কার্টনে করে হাসপাতালে সরবরাহকৃত প্রায় ৬০ হাজার টাকার অপারেশন সুতা, হ্যান্ড গ্লাভস, ক্যানুলাসহ বিভিন্ন সরকারি সার্জিক্যালসামগ্রি কালোবাজারে বিক্রির জন্য সদর হাসপাতালের সামনে সার্জিকালের দোকানে নিয়ে যাচ্ছিল। এ সময় স্থানীয় লোকজনের সন্দেহ হওয়ায় তারা তাকে চ্যালেঞ্জ করে। পরে তার ওইসব সার্জিক্যালসামগ্রি দেখতে পান। এরপর তারা তাকে গণধোলাই দিয়ে খুলনা রোডের মোড়ে অবস্থানকারী ট্রাফিক পুলিশে সোপর্দ করে। সেখান থেকে সদর থানার উপ-পরিদর্শক শরিফ এনামুল হক উদ্ধারকৃত মালামালসহ বিশ্বনাথকে থানায় নেন। বিশ্বনাথ সদর হাসপাতালের মধ্যেই বসবাস করে।
এদিকে, নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন জানান, সদর হাসপাতালের একটি অসাধু চক্র পরিচ্ছন্ন কর্মী বিশ্বানাথকে দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে হাসপাতালের সরকারি ওষুধ, ভ্যাকসিন ও সার্জিকালসামগ্রি কালোবাজারে বিক্রি করে আসছে। এই মালামাল নিয়ে বিশ্বনাথ কয়েকটি সার্জিকালে গিয়ে দরকষাকষিও করে।
তবে স্টোরকিপার দীপঙ্কর বর্মন জানান, সদর হাসপাতালের মালামাল কালোবাজারে বিক্রয়ের সাথে তার কোন সম্পৃক্ততা নেই। তিনি যখন গাড়ি থেকে অক্সিজেন নামাচ্ছিলেন তখন পরিচ্ছন্ন কর্মী বিশ্বনাথ তার স্টোরের মধ্য থেকে ওই মালামাল গুলি চুরি করে। তিনি আরো জানান, তিনি বাদী হয়ে তার বিরুদ্ধে প্রায় ৯ হাজার টাকার মালামাল চুরির একটি মামলা দায়ের করেছেন।
সাতক্ষীরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, এ ঘটনায় একটি মামলা করা হয়েছে।

আসাদুজ্জামান/তু্‌হিন

মন্তব্য
Loading...