মোরেলগঞ্জে জমি নিয়ে হামলায় আহতের মৃত্যু

৪২

মোরেলগঞ্জ প্রতিনিধি : বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ উপজেলার বারইখালী ইউনিয়নের তেতুলবাড়ীয়া এলাকায় জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলার তিনদিন পর আহত একজন হাসপাতালে মারা গেছেন।
৫ ফেব্রুয়ারি তেতুলবাড়ীয়া এলাকার বাসিন্দা পুলিশ সদস্য লাল মিয়া হাওলাদারের ছেলে সোহাগ হাওলাদার (৩০) সহযোগীদের নিয়ে প্রতিপক্ষের ওপর হামলা চালায়। এতে ফারুক খান (৫২), স্ত্রী ফরিদা বেগম (৪৮), ছেলে হাইউম খান (২২) ও মেয়ে হিরা আক্তার (১৯) গুরুতর আহত হয়। স্থানীয়রা তাদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। অবস্থা সংকটাপন্ন হওয়ায় তাদের খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। পরে খুলনা সার্জিক্যাল গাজী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তিনদিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে রোববার সকালে হাইউমের মৃত্যু হয়।
স্থানীয়রা জানায়, সোহাগের বাবা একজন পুলিশ। বোন ও বোনজামাই পুলিশ হওয়ায় সোহাগ তেতুলবাড়ীয়া এলাকায় একটি সন্ত্রাসী বাহিনী গড়ে তুলেছে। তার অন্যায়ের বিরুদ্ধে কেউ কথা বললে তাকে অপমান অপদস্থসহ মারপিটের শিকার হতে হয়। কয়েকমাস আগে ফারুক খানের বাড়ির সামনের কিছু জমি সোহাগ দখল করে তারকাটা দিয়ে ঘিরে নেয়। এ ঘটনায় ফারুক খান আদালতে মামলা দায়ের করেন। কিন্তু মামলা তুলে নেয়ার জন্য ফারুক খানকে সোহাগ হুমকি দিয়ে আসছে।
সর্বশেষ ৪ ফেব্রুয়ারি মামলায় হাজিরা দিয়ে ৫ ফেব্রুয়ারি সকালে ফারুক খানের ছেলে হাইউম বাড়ি থেকে রাস্তায় বের হলে সোহাগ প্রথমে মামলা তুলে নেয়ার জন্য হুমকি দেয়। এ নিয়ে তর্কে জড়িয়ে পড়লে সোহাগ, রাসেল, খলিল খান, আতিকুল খান, সোহাগের স্ত্রী জেসমিন বেগমসহ সন্ত্রাসীরা হাইউমকে মারতে শুরু করে। ছেলেকে মারপিট করার খবর পেয়ে তাকে উদ্ধারের জন্য বাবা ফারুক খান, মা ফরিদা বেগম ও বোন হিরা আক্তার ছুটে গেলে সন্ত্রাসীরা তাদেরও মারপিট করে। হামলাকারী সন্ত্রাসীরা এসময় দুটি মোবাইল, একটি ঘড়ি ও হিরার গলায় থাকা স্বর্ণের হার নিয়ে যায়।
এ ঘটনায় এমদাদ খানের ছেলে রাসেল খানকে আটক করেছে পুলিশ। থানার ওসি কেএম আজিজুল ইসলাম জানান, মৃত্যুর ঘটনা জেনে জড়িত থাকার সন্দেহে রাসেল খানকে আটক করা হয়েছে।

মন্তব্য
Loading...