উপজেলা নির্বাচন : যশোরে ১৯ চেয়ারম্যানসহ ৭৯ প্রার্থীর প্রতীক বরাদ্দ

১৮৭

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : পঞ্চম উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিদ্রোহের অনল থেকে রক্ষা পেল না আওয়ামী লীগ। ফলে এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীকে নিজ দলের বিদ্রোহী একাধিক প্রতিদ্বন্দ্বীর সাথে ভোটযুদ্ধ অবতীর্ণ হতে হবে। এতে করে আওয়ামী লীগের ভোটব্যাংকে ভাঙ্গনের আশঙ্কা রয়েই গেল।
বৃহস্পতিবার ছিল চতুর্থ দফা নির্বাচনে প্রার্থীর অনুকূলে প্রতীক বরাদ্দের দিন। এদিন যশোরের ৮ উপজেলায় ১৯ চেয়ারম্যান, ৩৫ ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস জেয়ারম্যান (সংরক্ষিত) ২৫ জনসহ মোট ৭৯ প্রার্থীর অনুকূলে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং অফিসার হুসাইন শওকত সদর, বাঘারপাড়া, চৌগাছা ও ঝিকরগাছা উপজেলার প্রার্থীদের অনুকূলে প্রতীক বরাদ্দ দেন। অন্যদিকে কেশবপুর, অভয়নগর ও মণিরামপুর উপজেলার প্রার্থীদের অনুকূলে প্রতীক বরাদ্দ দেন সিনিয়র জেলা নির্বাচন অফিসার হুমায়ন কবীর। শার্শা উপজেলায় তিন পদেই একক প্রার্থী থাকায় প্রার্থীর অনুকূলে প্রতীক বরাদ্দ দেয়ার প্রয়োজন হয়নি।
এদিকে প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দের পর যশোরের আট উপজেলায় নির্বাচনী প্রচারণায় নতুন মাত্রা যোগ হয়েছে। প্রার্থীরা তাদের বিজয় নিশ্চিত করতে কোমর বেধে নেমে পড়েছেন মাঠে। সমর্থকদের মাঝেও শুরু হয়েছে উৎসবমুখর পরিবেশ।
রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী না থাকায় জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদারকে প্রতীক না দিয়ে তাকে বিজয়ী ঘোষণা করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে সুপারিশ পাঠানো হয়েছে। ভাইস চেয়ারম্যান পদে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক সুলতান মাহমুদ বিপুল টিউবওয়েল প্রতীক এবং জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বিপুল তালা প্রতীক বরাদ্দ পেয়েছেন। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে জেলা আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা অ্যাড. সেতারা খাতুন হাঁস ও জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী নুরজাহান ইসলাম নীরা ফুটবল প্রতীক পেয়েছেন।
এদিকে কেশবপুর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী সমর্থিত প্রার্থী এইচএম আমীর হোসেনের অনুকুলে নৌকা প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে কাজী রফিকুল ইসলাম আনারস এবং জাতীয় পার্টির হাবিবুর রহমান লাঙল প্রতীক বরাদ্দ পেয়েছেন।
ভাইস চেয়ারম্যান পদে চশমা প্রতীক বরাদ্দ পেয়েছেন কবির হোসেন, আব্দুল লতিফ রানা উড়োজাহাজ, পলাশ কুমার মল্লিক তালা, হাবিবুর রহমান টিউবওয়েল ও সাইদুর রহমান গাজী টিয়া পাখি প্রতীক পেয়েছেন। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান (সংরক্ষিত) পদে নাসিমা আক্তার সাদেক হাঁস ও রাবেয়া খাতুন পেয়েছেন ফুটবল প্রতীক।
মণিরামপুরে চেয়ারম্যান পদে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত জেলা যুব মহিলা লীগের সহ-সভাপতি ও বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান (মহিলা) নাজমা খানম নৌকা প্রতীক বরাদ্দ পেয়েছেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে জেলা আওয়ামী লীগ সদস্য বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন লাভলু পেয়েছেন মোটরসাইকেল ও উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা হাবিবুর রহমান পেয়েছেন আনারস প্রতীক।
এ উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক হাসেম আলী মাইক, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক সন্দীপ কুমার ঘোষ টিউবওয়েল, উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক উত্তম কুমার চক্রবর্তী তালা ও মিকাইল হোসেন পেয়েছেন চশমা প্রতীক। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান (সংরক্ষিত) পদে উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী রীতা পাঁড়ে ফুটবল ও উপজেলা যুব মহিলা লীগের সভানেত্রী কাজী জলি আক্তার পেয়েছেন কলস প্রতীক।
অভয়নগর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে একমাত্র বৈধ প্রার্থী আওয়ামী লীগের মনোনীত শাহ ফরিদ জাহাঙ্গীরের অনুকূলে নৌকা প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। অন্য পাঁচ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়ায় প্রার্থীরা উচ্চ আদালতে আপিল করেছেন। আপিল নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত একক প্রার্থী ঘোষণা দিতে পারছেন না নির্বাচন কমিশন।
ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিন প্রার্থীর মধ্যে আব্দুর রউফ মোল্যা পেয়েছেন টিয়া পাখি প্রতীক, আক্তারুজ্জামান তারু টিউবওয়েল ও বিপুল শেখ পেয়েছেন তালা প্রতীক। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান (সংরক্ষিত) পদে দুইজনের মধ্যে বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান ফরিদা বেগম প্রজাপতি ও মিনারা পারভীন পেয়েছেন ফুটবল প্রতীক।
বাঘারপাড়া উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ছয় জনের মধ্যে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হাসান আলীর অনুকূলে নৌকা প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এছাড়া বিএনপি থেকে বহিষ্কৃত সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আবু তাহের সিদ্দিকী দোয়াতকলম, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও জামদিয়া ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান নাজমুল ইসলাম কাজল আনারস, ইসলামী ঐক্যজোটের মিজানুর রহমান মিনার, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির আলি জিন্নাহ আম ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মঞ্জুর রশিদ স্বপন পেয়েছেন মোটরসাইকেল প্রতীক।
ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১০ প্রর্থীর মধ্যে আবুল কালাম আজাদ উড়োজাহাজ, আব্দুর রউফ বই, মাজিদুল ইসলাম টিউবওয়েল, রাকিব হাসান শাওন টিয়া পাখি, শচীন্দ্র নাথ বিশ্বাস তালা, ফয়সাল আহমেদ মিল্টন বৈদ্যুতিক পাখা, গোলাম ছরোয়ার পালকি, নাজমুল হুসাইন চশমা, এনায়েত হোসেন লিটন মাইক ও জয়নাল আবেদীন পেয়েছেন আইসক্রিম প্রতীক। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান (সংরক্ষিত) পদে ওয়ার্কার্স পার্টির বিথিকা বিশ্বাস পদ্মফুল, আওয়ামী লীগের শরিফা খাতুন কলস, জাকিয়া সুলতানা হাঁস, শিরিন শবনম কবির ফুটবল ও দিলারা জামান পেয়েছেন প্রজাপতি প্রতীক।
চৌগাছা উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ড. মোস্তানিছুর রহমানের অনুকূলে নৌকা প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এসএম হাবিবুর রহমান পেয়েছেন আনারস প্রতীক। ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬ প্রার্থীর মধ্যে উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান দেবাশীষ মিশ্র জয় মাইক, সিদ্দিকুর রহমান তালা, আসাদুজ্জামান চশমা, আজাদ রহমান খান উড়োজাহাজ, সামছুর রহমান টিউবওয়েল ও শামীম রেজা পেয়েছেন বৈদ্যুতিক বাল্ব প্রতীক। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে পাঁচ প্রার্থীর মধ্যে বর্তমান মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আকলিমা খাতুন লাকী পেয়েছেন হাঁস, কামরুন নাহার শাহিন ফুটবল, রিপা ইসলাম প্রজাপতি, নাছিমা খাতুন কলস ও নাজনীন নাহার পেয়েছেন বৈদ্যুতিক পাখা।
ঝিকরগাছা উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বৈধ পাঁচ প্রার্থীর মধ্যে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী অ্যাড. মোহাম্মদ আলীর অনুকূলে নৌকা প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম আনারস, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির সাথী বেগম আম ও ইসলামী ঐক্যজোটের হাবিবুর রহমান পেয়েছেন মিনার প্রতীক।
ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিন প্রার্থীর মধ্যে মাহমুদুল ইকরাম টিয়া পাখি, সেলিম রেজা তালা, ইদ্রীস আলী বিশ্বাস পেয়েছেন টিউবওয়েল প্রতীক। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান (সংরক্ষিত) পদে ছয় প্রার্থীর মধ্যে লুবনা তাক্ষী পদ্মফুল, শিরিন জেসমিন মোছা. মঞ্জুন্নাহার নাজনিন বৈদ্যুতিক পাখা, আমেনা খাতুন হাঁস, তাজবিন সুলতানা কলস, শাহানারা খাতুন ফুটবল ও নাহিদ আক্তার পেয়েছেন প্রজাপতি প্রতীক।

মন্তব্য
Loading...