রাতেই পরীক্ষা দিলো রিকি

২৩৬

নিজস্ব প্রতিবেদক : শনিবার সকাল ১০টায় একযোগে এসএসসির বাংলা প্রথম পত্রের পরীক্ষা শুরু হয়। আগেই কেন্দ্রে ঢোকে পরীক্ষার্থীরা। দুপুর ১টায় শেষও হয়। রিকি হালদারও সকালে পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ করে। দুপুরে পরীক্ষা শেষ করে বাকিরা বাড়ি গেলেও সন্ধ্যার অপেক্ষায় থাকতে হয় তাকে। ধর্মীয় বিধান অনুযায়ী দিনের বেলায় লেখা নিষেধ থাকায় তার জন্য রাতে পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হয়। শনিবার সন্ধ্যায় কুষ্টিয়ার কুমারখালি এমএন পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে বাংলা প্রথমপত্র পরীক্ষা দেয় খ্রিস্টান ধর্মের ‘সেভেন্থ ডে এডভান্টিস্ট’ সম্প্রদায়ের রিকি হালদার। রাত ৯টায় শেষ হয় তার পরীক্ষা। আরো ৩টি পরীক্ষা শনিবার রাতে দেবে সে। যশোর শিক্ষাবোর্ডের রাতে এসএসসি পরীক্ষা দেওয়ার ঘটনা এটিই প্রথম।
পরীক্ষা কেন্দ্র সচিব ফিরোজ মোহাম্মদ বাসার জানান, বোর্ডের নির্দেশনা মোতাবেক রিকি পরীক্ষা হলে প্রশ্ন এবং উত্তরপত্র নিয়ে বসেছিল। পরীক্ষা শেষে অন্যরা বাইরে বের হলেও রিকি কেন্দ্রেই ছিল। সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত তার পরীক্ষা নেয়া হয়। কেন্দ্র সচিব, হলসুপার, সহকারী হলসুপার, কক্ষ পরিদর্শক ও পুলিশসহ দায়িত্বশীল সকলকেই রিকির পরীক্ষা গ্রহণকালে দায়িত্ব পালন করেন।
তিনি আরো বলেন, বোর্ডের নির্দেশনা অনুযায়ী পরীক্ষা কক্ষের বাইরে যাওয়া বা কারো সাথে যোগাযোগও করতে পারবেন না রিকি। তার পরীক্ষা শেষে অর্থাৎ রাত ৯টার আগে রিকি কোনো ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইস ব্যবহার করতেও পারবে না। এসময় বোর্ডের পক্ষ থেকে তাকে খাবার ও পানি সরবরাহসহ শৌচাগার ব্যবহারে শর্তসাপেক্ষে অনুমতি প্রদান করেছে। বোর্ড নিযুক্ত প্রতিনিধি সব সময় তার সাথেই ছিলেন।
এদিকে রিকি হালদার জানায়, শনিবার দিনের বেলায় আমার সম্প্রদায়ের মানুষদের কোনো কিছু না লেখার ধর্মীয় বিধান থাকায় শিক্ষা বোর্ডে আবেদন করেছিলাম, শিক্ষা বোর্ড সেটি গ্রহণ করেছে। কুমারখালী উপজেলার পারফেক্ট ইংলিশ ভার্সন স্কুল থেকে এসএসসি পরীক্ষার্থী হিসেবে অংশগ্রহণ করেছি। পরবর্তী দিনগুলোর শনিবারের পরীক্ষার ক্ষেত্রেও একই সুবিধা পাবো বলে বোর্ড নির্ধারণ করেছে।
রিকি হালদার বলে, আমার জন্য সবাই দোয়া করবেন। আমি যেনো পরীক্ষাতে ভালো ফলাফল করতে পারি। শিক্ষা বোর্ডের প্রতি আমি খুবই খুশি। বোর্ড এই সুযোগ না দিলে আমি পরীক্ষা দিতে পারতাম না।

মন্তব্য
Loading...